মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৯:৩৯ পূর্বাহ্ন

ক্ষমা চাওয়ার প্রশ্নই ওঠে না: জাইমা ইস্যুতে প্রতিমন্ত্রী মুরাদ

প্রকাশিতঃ রবিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২১, ২:২০ অপরাহ্ন

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান লন্ডনে প’লাত’ক তারেক রহমানের মেয়ে জাইমা রহমানকে নিয়ে মন্ত’ব্য করে অনলাইন-অফলাইনে ব্যাপক স’মালো’চিত হয়েছেন সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান। নারী অধিকারকর্মী থেকে শুরু করে সুশীল সমাজ, বি’রো’ধী দলীয় রাজনীতিবিদ, এমনকি সরকার দলীয় অনেক নেতাকর্মীও বলছেন— এমন ‘অ’শা’লীন’ মন্তব্যের জন্য ক্ষ’মা চাওয়া উচিত প্রতিমন্ত্রীর। তবে প্রতিমন্ত্রী নিজে বলছেন, এই ইস্যুতে ক্ষ’মা চাওয়ার কোনো প্রশ্নই ওঠে না।

 

শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) এক লাইভ অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী কথা বলেন চলমান বিভিন্ন ইস্যুতে। ওই সময়ই জাইমা রহমানকে নিয়েও মন্তব্য করেন তিনি। মুহূর্তেই তার ব’ক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভা’ইরা’ল হয়ে পড়ে। প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্যকে অভ’ব্য, শিষ্টাচার বহি’র্ভূত, নারী’বিদ্বে’ষী, কু’রু’চিপূর্ণ বলে অভিহিত করেছেন অনেকেই। সরকারের দায়িত্বশীল একটি পদে থেকে এমন বক্তব্য কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়— এমনটি বলেছেন আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মীও। সে কারণেই বক্ত’ব্য প্রত্যাহার করে প্রতিমন্ত্রী যেন ক্ষ’মা চান— এমন দা’বি উঠেছে।

 

রোববার (৫ ডিসেম্বর) এ বিষয়ে প্রতিমন্ত্রীর মন্তব্য জানতে চায় সারাবাংলা। প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান সারাবাংলাকে বলেন, ‘ক্ষ’মা চাওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। এমন দাবিকে ঘৃ’ণাভ’রে প্রত্যাখান করলাম।’ প্রতিমন্ত্রীর মন্তব্য নিয়ে যে তীব্র স’মালো’চনা হচ্ছে সে বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, ‘স’মালো’চকদের আমি বলব, আসসালামু ওয়ালাইকুম। আপনি ভালো থাকেন, সুখে থাকেন, শান্তিতে থাকেন। আপনাদের এই গা’লিগা’লাজ আমাকে কোনোরকম ক্ষ’তি করতে পারবে না।’

 

নিজ দলের অনেক নেতাকর্মীও তো আপনার স’মালো’চনা করছেন, তাদের কী বলবেন— এমন প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান বলেন, ‘উনারা তো মহান নেতা। উনারা নিজেদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের চেয়েও বড় নেতা মনে করেন। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার চেয়েও উনারা বড় নেতা। তাদের সম্প’র্কে কোনো মন্তব্য করার মান’সিকতা আমি রাখি না, মন্তব্য করার দরকারও নেই।’

 

বিভিন্ন ইস্যুতে বক্তব্য দিয়ে আ’লোচনায় আসা মুরাদ হাসানের জন্য নতুন নয়। ক’দিন আগেই এক সমাবেশে বা’হাত্তরের সংবিধানে ফেরার দা’বি জানিয়ে নিজ দলের মধ্যেই স’মালোচ’নার মুখে পড়েন তিনি। সংবিধানে বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম ও রাষ্ট্রধর্ম থাকতে পারে না— এমন মন্তব্যও তিনি আরেক অনুষ্ঠানে করেন। সবশেষ স’মালোচ’নার মুখে পড়লেন জাইমা রহমানকে নিয়ে অশা’লীন মন্তব্য করে।

 

মুরাদ হাসান জামালপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য। পেশায় চিকিৎসক এই রাজনীতিক স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) ও এ’কাত্তরে’র ঘাত’ক-দা’লাল নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সদস্য। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ের পর আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয় তাকে। পরে ২০১৯ সালের মে মাসে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত হন তিনি।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: