মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১০:২৫ পূর্বাহ্ন

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি কর্মীদের সব খরচ নিয়োগকর্তার

প্রকাশিতঃ সোমবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০২১, ৭:০৭ পূর্বাহ্ন

প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘এ সমঝোতা স্মারকের আওতায় বাংলাদেশি কর্মীদের মালয়েশিয়া প্রান্তের সকল খরচ নিয়োগকর্তা বহন করবেন।’ বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগে সমঝোতা স্মারকে (এমওইউ) সই করেছে মালয়েশিয়া। স্থানীয় সময় রোববার বাংলাদেশের প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদ ও মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রী দাতুক সেরি মুরুগান সারাভানান এমওইউতে সই করেন। এ সমঝোতা স্মারক অনুযায়ী, মালয়েশিয়া প্রান্তে বাংলাদেশি কর্মীদের সব খরচ বহন করবেন নিয়োগকর্তা।

 

এ নিয়ে প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘এ সমঝোতা স্মারকের আওতায় বাংলাদেশি কর্মীদের মালয়েশিয়া প্রান্তের সকল খরচ নিয়োগকর্তা বহন করবেন। যেমন: রিক্রুটমেন্ট এজেন্সি নিয়োগ, মালয়েশিয়ায় আনয়ন, আবাসন, কর্মে নিয়োজন এবং কর্মীর নিজ দেশে ফেরত প্রেরণের খরচ বহন করবেন। নিয়োগকর্তা নিজ খরচে মালয়েশিয়ান রিক্রুটিং এজেন্ট নিযুক্ত করতে পারবেন।

 

‘মালয়েশিয়ায় আসার পর বাংলাদেশি কর্মীর ইমিগ্রেশন ফি, ভিসা ফি, স্বাস্থ্য পরীক্ষার খরচ, ইন্স্যুরেন্স সংক্রান্ত খরচ, করোনা পরীক্ষার খরচ, কোয়ারেন্টিন সংক্রান্ত খরচসহ সকল ব্যয় মালয়েশিয়ার নিয়োগকর্তা/কোম্পানি বহন করবেন। নিয়োগকর্তা কর্মীর মানসম্মত আবাসন, বিমা, চিকিৎসা এবং কল্যাণ নিশ্চিত করবে। ফলে আশা করা যায় কর্মীর অভিবাসন খরচ অনেক কমে যাবে।’

 

মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, ‘সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের ফলে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগ, কর্মসংস্থান এবং প্রত্যাবাসনে আদর্শ কাঠামো প্রতিষ্ঠার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। বাংলাদেশের শ্রমিকদের কর্মসংস্থান একটি অন্যতম সহযোগিতার ক্ষেত্র এবং পারস্পরিকভাবে উপকারী বলে উভয় দেশ বিশ্বাস করে। ‘বাংলাদেশের কর্মীরা যেমন মালয়েশিয়ার অর্থনৈতিক উন্নয়নে অবদান রাখছে, তেমনি বাংলাদেশের উন্নয়নেও অবদান রেখে যাচ্ছে, যা উভয় দেশ স্বীকার করে।’

 

এর আগে মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে স্থানীয় সময় বেলা ১১টায় এমওইউ সই করে দুই দেশ। ওই সময় দুই মন্ত্রী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন, মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি হাইকমিশনার গোলাম সারোয়ার, মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল দাতু মুহাম্মদ খাইর আজমান বিন মোহামেদ আনুয়ার, জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমআইটি) মহাপরিচালক মো. শহীদুল আলম, শ্রম কাউন্সেলর জহিরুল ইসলামসহ দুই দেশের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা।

 

মালয়েশিয়া সরকার ২০১৮ সালের অক্টোবরে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগে স্থগিতাদেশ দেয়। ফের কর্মী নিয়োগে উভয় দেশের মধ্যে কয়েকটি সভা হয়। গত ১০ ডিসেম্বর মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়, বাংলাদেশের প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে শ্রমিক নেয়ার বিষয়ে এমওইউ সইয়ে রাজি হয়েছে তাদের সরকার। মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রী সারাভানান জানিয়েছিলেন, এমওইউ সইয়ের পরপরই বাংলাদেশি শ্রমিক নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু হবে। তিনি আরও বলেছিলেন, বৃক্ষরোপণ, কৃষি, শিল্প উৎপাদন, সেবা, খনিতে উত্তোলন, নির্মাণ এবং গৃহকর্মের মতো খাতগুলোতে বাংলাদেশি শ্রমিক নেয়া হবে।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: