বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ১২:৩৩ অপরাহ্ন

শ্বশুরের জন্য দোয়া চাইলেন অভিনেতা রিয়াজ

প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২২, ১:০৩ অপরাহ্ন

মান-অভি’মান আর কষ্টের কথা নিজ মুখেই বলে অভিনেতা রিয়াজের শ্বশুর আবু মহসিন খান ফেসবুকে লাই’ভে এসে আ’ত্মহ’ত্যা করেন। ফেসবুক লাইভে এসে আ’ত্মহ’ত্যা করা শ্বশুর আবু মহসিন খানের জন্য দোয়া চাইলেন অভিনেতা রিয়াজ। আজ বৃহস্পতিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা মেডিকেল কলেজ ম’র্গে সাংবা’দিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি সবার কাছে দোয়া চান। নায়ক রিয়াজ বলেন, ‘আমার বাবার জন্য আপনারা সবাই দোয়া করবেন। আল্লাহ যেন তাকে মা’ফ করে দেন।’ এর চেয়ে আর বেশি কিছু বলতে রাজি হননি তিনি।

বুধবার রাত ১০: ৩০ এর দিকে রাজধানীর ধানমণ্ডিতে নিজ বাসায় ফেসবুক লা’ইভে এসে মাথায় অ’স্ত্র ঠে’কিয়ে আ’ত্মহ’ত্যা করেন অভিনেতা রিয়াজের শ্বশুর আবু মহসিন খান। যারা সেই সময় লাই’ভটি দেখছিলেন তারাই পুলিশকে ৯৯৯ এ খবর দেন। পরে পুলিশ গিয়ে ম’রদেহটি উ’দ্ধার করেন। আ’ত্মহ’ত্যা’র আগে একটি সু’ইসাই’ড নোট রে’খে গেছেন আবু মহসিন খান। পুলিশ বলেছে, সেখানে তিনি লিখেছেন ‘আমার মৃ’ত্যুর জন্য কেউ দা’য়ী নয়।’

এই ঘটনায় পরিদর্শন করে পুলিশের রমনা বিভাগের উপকমিশনার মো. সাজ্জাদুর রহমান গনমাধ্যমকে বলেন, আবু মহসিন খান একাই ওই ফ্ল্যাটে থাকতেন। তার মৃ’ত্যুর জন্য কেউ দা’য়ী নন বলে সু’ইসা’ইড নো’টে লিখে গেছেন তিনি। বিভাগের উপকমিশনার সাজ্জাদুর রহমান বলেন, মহসিন খানের সু’ইসাই’ড নোটে লেখা রয়েছে, ‘ব্যবসায় ধ’স নেমে যাওয়ায় আমি হতা’শাগ্র’স্ত হয়ে পড়ি। আমার সঙ্গে অনেকের লেনদেন ছিল। কিন্তু তারা টাকা দেয়নি। আমার মৃ’ত্যুর জন্য কেউ দা’য়ী নয়।’এই পুলিশ কর্মকর্তা জানান, মহসিন খান ২০১৭ সালে ক্যা’নসারে আ’ক্রা’ন্ত হয়েছিলেন। তবে পরে তিনি সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন।

অপরদিকে ধানমণ্ডি থানার ওসি ইকরাম আলী মিয়া বলেন, উনার (মহসিন) যারা ফলোয়ার ছিলেন, তারা ঘটনাটি দেখে ৯৯৯ এ ফোন দেন। পরে পুলিশ ধানমন্ডি ৭ নম্বর রোডের ২৫ নম্বর বাড়ির পঞ্চম তলা থেকে মহসিনের ম’রদেহ উ’দ্ধার করে। ওসি বলেন, চেয়ারের মধ্যে মৃ’তদেহ আর পাশেই তার বৈ’ধ পি’স্ত’লটি পড়েছিল। পঞ্চম তলার ওই ফ্ল্যাটে কেউ ছিলেন না। তার স্ত্রী ও সন্তান অস্ট্রেলিয়ায় থাকেন।

আ’ত্মহ’ত্যা কেন করেছেন, তা জানতে চাইলে ওসি বলেন,‘প্রস্তুতি নিয়েই এই আ’ত্মহ’ত্যা’ করেছেন তিনি। চিরকুটে সবকিছু লিখে গেছেন। ক্যানসা’রে আ’ক্রা’ন্ত হয়েছেন, ব্যবসা করতেন এবং লোকসানের ভারে কীভাবে জর্জরিত হয়েছেন, সব কিছুই লিখেছেন ‘আবু মহসিন খান ৫৮ বছর বয়সী পেশায় ব্যবসায়ী। তিনি ধানমন্ডি ৭ নম্বর রোডের ২৫ নম্বর ভবনে নিজের ফ্ল্যাটে একাই থাকতেন। আবু মহসিন এক ছেলে ও এক মেয়ের জনক ছিলেন। বড় ছেলে তার মাকে নিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় থাকেন।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: