মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১০:২১ পূর্বাহ্ন

মাসিক ভাতা পেলেন মালয়েশিয়ায় হাত হারানো দেলোয়ার

প্রকাশিতঃ শুক্রবার, ৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২২, ৫:৫৩ পূর্বাহ্ন

হাইকমিশনের তৎপরতায় ক্ষতিপূরণ ও মাসিক ভা’তা পেলেন মালয়েশিয়ায় দুর্ঘটনায় আহত দেলোয়ার (৩২)। তিনি এক’কালীন ক্ষতিপূরণ পেয়েছেন ৭ লাখ ৭ হাজার টাকা। এছাড়াও আজীবন মাসিক ভাতা হিসেবে ৭৫০ রিঙ্গি’ত বা ১৫ হাজার ৩৭৫ টাকা করে বাংলাদেশে বসেই পাবেন তিনি। জা’না গেছে, এর আগে ক্ষতিগ্রস্ত কোনো প্রবাসীকর্মী আজীবন পেনশন পাননি। এই প্রথম দেলোয়ারকে দি’য়ে শুরু হলো বলে হাইকমিশনের সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

 

এদিকে দেশে অবস্থানরত দেলোয়ারের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা হলে জানান, তিনি দেশে আসার পরপরই ৭ লাখ ৭ হাজার টাকা পেয়েছেন। হাইকমিশন সহায়তা না করলে ক্ষতিপূরণ পেতেন না বলে তিনি হাইকমিশনের সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। রেমিট্যান্সযো’দ্ধা পাবনার মো. দেলোয়ার হোসেন ২০১৬ সালে ভাগ্যের চাকা বদলাতে মালয়েশিয়া যান। প্রথমদিকে ভালোভা’বেই দি’ন যাচ্ছিল দেলোয়ারের।

 

কাজে থাকাবস্থায় এক দুর্ঘটনায় তার বামহাত কেটে ফেলা হয়। এর মধ্যেই মালিকপক্ষ তড়িঘড়ি করে তাকে দেশে পাঠানোর চেষ্টা চালায়। বি’মা’নের টিকিট করে দেলোয়ারের হাতে তুলে দেয় মালিকপক্ষ। ক্ষতিপূরণের টাকা চাইলে মালিকপক্ষ অসম্মতি জানায়। কোনো উপায়ন্তর না পেয়ে দেলোয়ার সোজা চলে যান হাইকমিশনে। মালিকপক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। হাইকমিশন দেলো’য়ারের পক্ষে ক্ষতিপূরণ আদায়ে ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করে। যতদিন পর্যন্ত ক্ষতিপূরণ পরিশোধ না করবে ততদিন দেলোয়ার মালয়েশিয়ায় অবস্থান করবে বলে সিদ্ধা’ন্তে অটল ছিল হাইকমিশন।

 

এরপর হাইকমিশনের তৎপরতায় ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি দেলোয়ারের কেটে ফেলা বাম হাতের জায়গায় কৃত্রিম হাত লাগিয়ে দেয়। মালয়েশিয়ায় সোশ্যাল সিকিউরিটি অর্গানাইজেশন (সকসো) ২০২০ সাল থেকে বিদেশিকর্মীদের ক্ষতিপূরণ ও পেনশন নিয়ে কাজ করছে। সকসোর সদস্য হিসেবে বিদেশি কর্মীদের অন্তর্ভুক্ত করতে নিয়োগকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছে মালয়েশিয়া সরকার।

হাইকমিশার মো. গোলাম সারওয়ার বলেন, বাংলাদেশের প্রবাসীদের মেধা, শ্রম ও দক্ষতা বিশ্বে প্রশংসিত। একইসঙ্গে প্রবাসীরা অবস্থানকারী দেশ এবং নিজ দেশের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। করোনাকালে সম্মুখসারির কর্মী হিসেবে বাংলাদেশি কর্মীরা মালয়েশিয়ায় কাজ ক’রেছেন। প্রবাসী বৈধ কর্মীদের নিয়োগকর্তা সোকসোর সদস্য না পেলে যেন হাইকমিশনে যোগাযোগ করা হয়।

তিনি বলেন, মালয়েশিয়ায় কর্মরত প্রত্যেক কর্মীকে বিমার আওতায় আনার প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে। মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি কর্মীদের সামাজিক নিরাপত্তা বৃদ্ধিতে ২০১৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৫ লাখ ৬ হাজার ১৬৩ জন বাংলাদেশি কর্মী সকসোর সদস্যপদ লাভ করেছেন। এরই মধ্যে ১৩ কোটি ১২ লাখ টাকার বিমা আদায় করা হয়েছে। এ পর্যন্ত অস্থায়ী অক্ষমতাবরণকারী ৩ হাজার ১৭৮ জনকে ৮ কোটি ৮১ লাখ টাকা, স্থায়ী পঙ্গুত্ববরণকারী ৬৮ জনকে ৪ কোটি ২১ লাখ টাকা, ২১৯টি মরদেহ পাঠানো বাবদ ২ কোটি ২ লাখ ৬৪ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। গত বছরের মার্চ থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত কর্মক্ষেত্রে করোনা আক্রান্ত ৮৫০ জনকে ৯৮ লাখ ৯৭ হাজার টাকার সমপরিমাণ অর্থ সুবিধা দেওয়া হয়েছে। সিরাজগঞ্জের প্রামাণিক ৫০ লাখ টাকা ক্ষতি পূরণ পেয়েছেন।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: