শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০২:৪৮ অপরাহ্ন

ভিক্ষায় ব্যবহারের জন্য কোল থেকে শিশু চুরি, করলো চেহারা বিকৃত!

প্রকাশিতঃ রবিবার, ২ মে, ২০২১, ১১:৩০ পূর্বাহ্ন

ভাঙারি ও কাগজ সংগ্রহ করে বিক্রির মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করেন সুমা। প্রতিদিনকার মতো দুই বছরের শি’শু রাশিদা আক্তারকে নিয়ে পথে নামেন তিনি। কাগজ খোঁজার ফাঁকেই শি’শু রাশিদাকে হারিয়ে ফেলেন মা। আসলে শি’শু রাশিদা হারিয়ে যায়নি। তাকে চকলেটের লো’ভ দেখিয়ে অ’পহ’রণ করে নিয়ে যান নীলা বেগম (৩০)। ভিক্ষায় ব্যবহারের জন্য আ’ট’কে রেখে মা’রধর করে এরই মধ্যে বি’কৃত করে দেওয়া হয় শি’শুটির চেহারা। অবশেষে পু’লিশের তৎপরতায় দীর্ঘ ছয়দিন পর শি’শু রাশিদাকে উ’দ্ধার সম্ভব হয়। গ্রে’ফতার করা হয় অ’পহ’রণে জ’ড়িত নীলা বেগমসহ ১০ বছরের এক মে’য়েকে।

 

শনিবার (০১ মে) রাতে কেরানীগঞ্জ মডেল থা’নাধীন কদমতলী এলাকা থেকে শি’শুটিকে উ’দ্ধারসহ দুইজনকে গ্রে’ফতার করে বংশাল থা’না পু’লিশ। পরে তাৎক্ষণিকভাবে শি’শুটিকে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতা’লে চিকিৎসার ব্যবস্থা করে পু’লিশ। বংশাল থা’না পু’লিশ জানায়, মোহাম্ম’দপুর এলাকার বাসিন্দা সুমা (২৫) রাস্তা থেকে ভাঙারি ও কাগজ সংগ্রহ করে তা বিক্রির মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করেন। গত ২৫ এপ্রিল বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বাসা থেকে বেরিয়ে কাগজ ও ভাঙারি খোঁজার জন্য বংশালে যান। বিকেল সাড়ে চারটার দিকে পুরাতন বংশাল রোডের মা’থায় মে’য়ে রাশিদা আক্তারকে (২) বসিয়ে রেখে কাগজ সংগ্রহ করছিলেন সুমা। কিছুক্ষণ পরে দেখতে পান তার মে’য়ে আর সেখানে নেই।

 

আশেপাশে খুঁজে তাকে না পেয়ে বংশাল থা’নায় একটি জিডি (নম্বর-১১৬১) করেন সুমা। ওই জিডির পরিপ্রেক্ষিতে শি’শু রাশিদাকে খুঁজে পেতে চার সদস্যের টিম গঠন করে পু’লিশ। ত’দন্তে ঘটনাস্থলের সা’সিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করে দুইজনকে শনাক্ত করা হয়। এর ধারাবাহিকতায় বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে শনিবার (০১ মে) রাত সাড়ে আটটার দিকে কদমতলীর শহিদনগর এলাকা থেকে শি’শু রাশিদাকে উ’দ্ধারসহ দুইজনকে গ্রে’ফতার করা হয়।

 

বংশাল থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) মো. শাহীন ফকির জানান, আ’সামি নীলা বেগম ও আরেকজন পরস্পরের যোগসাজসে শি’শু রাশিদা আক্তারকে চকলেট খাইয়ে কথাবার্তার মাধ্যমে কৌশলে অ’পহ’রণ করে নিয়ে যায়। তাদের উদ্দেশ্য ছিল শি’শু রাশিদাকে ভিক্ষাবৃত্তিতে ব্যবহার।

 

আর সেজন্য মা’রধর করে শি’শুটির চেহারা বি’কৃত করে দেওয়া হচ্ছিল। ওসি বলেন, উ’দ্ধার শি’শুটির শারীরিক অবস্থা খা’রাপ হওয়ায় তাকে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতা’লে চিকিৎসা দেওয়া হয়। পু’লিশের তৎপরতায় অবশেষে তাকে ফিরিয়ে দেওয়া হয় মায়ের কোলে। এদিকে, এ ঘটনায় জ’ড়িত দুইজনের বি’রুদ্ধে নারী ও শি’শু নি’র্যাতন দমন আইনে একটি মা’মলা দায়ের করা হয়েছে। গ্রে’ফতারদের বি’রুদ্ধে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলে জানান ওসি শাহীন ফকির।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: