বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ১২:৫৮ পূর্বাহ্ন

প্লাবনের ফোনেই এশার আসল ঘটনা কথা জানতে পারেন স্বজনরা

প্রকাশিতঃ সোমবার, ৭ মার্চ, ২০২২, ৮:০৭ পূর্বাহ্ন

প্রেমিক প্লাবন ঘোষের (২৪) ফোনকলেই জান্নাতুল নওরিন এশা (২২) আ’ত্মহ’ত্যা করেছেন বলে জানতে পারেন মা সানজিদা আক্তার। তিনি আরও জানান, আ’ত্মহ’ত্যা’র সময় তারে মেয়ে প্লাবনের সঙ্গে ভি’ডিও কলে ছিল। রবিবার এশার মা ও আলোচিত স’ন্ত্রা’সী এরশাদ শিকদারের দ্বিতীয় স্ত্রী সানজিদা আক্তার (৪৮) সাংবাদিকদের কাছে এসব দা’বি করেন। এ ঘটনায় করা মাম’লার এজাহারেও তিনি এসব কথা উল্লেখ করেছেন। উল্লেখ্য, ২০০৪ সালে খুলনায় হ’ত্যা মা’মলায় স’ন্ত্রা’সী এরশাদ শিকদারের মৃ’ত্যুদ’ণ্ড কার্যকর হয়।

 

শুক্রবার ভোরে রাজধানীর গুলশানের শাহজাদপুরের সুবাস্তু টাওয়ারের বাসায় এশা আ’ত্মহ’ত্যা’ করেন। এশা টিক’টকে সক্রিয় ছিলেন। টিকটকে তার কয়েকটি ভি’ডিও দেখা যায়। এ ঘটনায় গুলশান থানায় প্রেমিক প্লাবন ঘোষের বি’রু’দ্ধে আত্মহত্যার প্ররোচণার অভিযোগ এনে মামলা করেন সানজিদা আক্তার। প্লাবন এখন প’লাতক রয়েছে বলে পুলিশের দা’বি। সানজিদা আক্তার দা’বি করেছেন, রাতে এশা প্লাবনের সঙ্গেই ছিল।

 

অনেক রাত হয়ে যাওয়ার পরেও যখন এশা বাসায় ফিরছিল না, তখন আমি প্লাবনকে ফোন করি। প্লাবন জানায়, এশা তার সঙ্গে আছে। রাত ১টার পর আবার ফোন করি। তখন প্লাবন জানায়, এশা পাগ’লামি করছে। তারা গ’ণ্ডগোল করছে। তখন আমি প্লাবনকে বলি, আমার মেয়ের কিছু হলে সব দো’ষ তোমার। আমার মনের মধ্যে কেমন যেন করছিল তখন।’ তিনি আরও বলেন, ‘এরপর রাত সাড়ে তিনটার দিকে আমি বাসার দারোয়ানকে ফোন করি। জিজ্ঞাসা করি, এশাকে দেখেছে কি না। তখন দায়োয়ান আমাকে জানায়, এশা আর প্লাবন বাড়ির সামনে ঝা’মেলা করছিল।

 

হা’তাহাতি করছিল তারা। প্লাবনের সঙ্গে গাড়ি ছিল। ওরা দুজন সারা রাত বাইরে রাস্তায় রাস্তায় ছিল বোধ হয়। ভোরের পর প্লাবনের সঙ্গে আমার আর কথা হয়নি। আমি চাই, সে তার শাস্তি পাক। এশা প্লাবনকে ভিডিও কলে রেখে আ’ত্মহ’ত্যা করেছে, কীভাবে বুঝলেন জানতে চাইলে সানজিদা আক্তার বলেন, ‘ঘরের দরজা ভে’ঙে ভেতরে ঢুকে দেখি, ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আছে এশা। আর ফোনটি বা’লিশ এবং দেওয়ালে ঠে’স দিয়ে এমনভাবে রাখা, যেখান থেকে এশার ঝুলে থাকা দেখা যাবে। আ’ত্মহ’ত্যা করার পরপরই প্লাবনের কথা শুনেও মনে হলো, সে সব দেখেছে।

 

মাম’লার এ’জাহারে বলা হয়, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে প্লাবন শাহজাদপুরের বাসায় যান। তারপর এশা ও তার বান্ধবী খন্দকার সুমি আক্তারকে নিয়ে ঘুরতে যান প্লাবন। সুমির মাধ্যমে জানা যায়, মোবাইলে কল আসাকে কেন্দ্র করে এশা ও প্লাবনের মধ্যে কথা কা’টাকা’টি শুরু হয়। এজাহারে আরও বলা হয়েছে, এসবের মধ্যে রাত ১১টার দিকে তাদের সুমি নিজের বাসায় নিয়ে যান। কিন্তু, সুমি তাদের মধ্য আপস করতে ব্য’র্থ হন। পরে এশা ও প্লাবন সুমির বাসা থেকে বের হয়ে যান। এরপর আনুমানিক ভোর পৌনে ৫টার দিকে এশা বাসায় ফিরে তার কক্ষের ছি’টকিনি লাগিয়ে দেন। সানজিদা তখন বাসায় ড্রইং রুমে ঘুমান বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

 

এজাহারে সানজিদা বলেছেন, ভোর ৫টা ২৪ মিনিটে প্লাবনের কাকা এশার বান্ধবী সুমিকে ফোন করে বলেন, ‘তুমি দ্রুত এশার বাসায় যাও। এশা প্লাবনের সঙ্গে পাগ’লামি করছে, আ’ত্মহ’ত্যা’র চেষ্টা করছে।’এরপর প্লাবন এশার মা সানজিদাকে কল করে জানান, এশা গ’লায় ফাঁ’স দিয়ে আ’ত্মহ’ত্যা করছে। পরে দ্রুত সানজিদা দরজা খুলতে গিয়ে দেখেন, দরজার ছি’টকিনি লাগানো। পরে বাসার নিরাপ’ত্তাকর্মীসহ অন্যরা দরজা ভে’ঙে ভেতরে ঢুকে দেখতে পায়, এশা ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁ’চিয়ে ঝুলে আছে।

 

এজাহারে আরও বলা হয়, আ’ত্মহ’ত্যার ঘটনার পর সুমির মাধ্যমে সানজিদা জানতে পারেন, এশা ও প্লাবনের ধর্ম আলাদা হওয়ায় সম্প’র্ক আর না এগিয়ে নিতে প্লাবন উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে জান্নাতুল নওরিন এশাকে আ’ত্মহ’ত্যা করতে বা’ধ্য করেছে। গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসান বলেন, ‘এখন পর্যন্ত আসামি প্লাবনকে গ্রে’প্তার করা যায়নি। আমরা তাকে গ্রে’প্তারের চেষ্টা করছি।’

Facebook Notice for EU! You need to login to view and post FB Comments!


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: