রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ১০:৫৬ অপরাহ্ন

মালয়েশিয়ার মর্গে থাকা বাংলাদেশির লাশ দেশে ফেরাতে স্ত্রীর আকুতি

প্রকাশিতঃ সোমবার, ৭ মার্চ, ২০২২, ১:৩৬ অপরাহ্ন

আব্দুল কাইয়ুম (৫৫) নামের প্রবাসী বাংলাদেশির লাশ মালয়েশিয়ার একটি হাসপাতালের মর্গে পড়ে আছে। মরদেহ দেশে ফেরত পাঠাতে হলে এক লক্ষ টাকার প্রয়োজন যে অর্থ পরিবারের পক্ষে যোগান দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। শনিবার ৫ মার্চ দুপুরে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পরেন কাইয়ুম, এরপর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

 

এদিকে কাইয়ুমের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম, লাশ দেশে ফেরত পাঠাতে সরকারি অনুদান এবং বিদেশের সকল বিত্তবানদের আর্থিক সহযোগিতা কামনা করেছেন। মৃত আব্দুল কাইয়ুম ২০০৮ সালের কলিং ভিসায় মালয়েশিয়ায় যান। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলার মাঝিকারা গ্রামের মোঃ কফিল উদ্দিনের ছেলে আব্দুল কাইয়ুম।

 

তিনি কুয়ালালামপুর দামানসারা উতমা এলাকায় বসবাস করতেন। মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরের মালয়েশিয়া প্রবাসী মোঃ রাসেল শিকদার জানিয়েছেন, কাইয়ুমের হার্ট অ্যাটাকের খবর পাওয়ার পর তিনি তার বাসায় গিয়ে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করেন,পরে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান কাইয়ুম।

 

কাইয়ুম স্ত্রী সহ ২ মেয়ে সন্তানকে রেখে গেছেন। বিভিন্ন কারণে প্রতারিত হওয়ার পর মালয়েশিয়ায় চাকরি করেও তিনি আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হতে পারেননি। এমনকি কি দেশের বাড়িতে নিজের কোন ভিটার জায়গা বা জমি নেই। ভিসা করতে না পারায় মারা যাওয়ার সময়ে তার বৈধ ভিসা ছিল না। এজন্য তার মরদেহ দেশে পাঠাতে দীর্ঘ একটি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হবে। মালয়েশিয়ায় তার কোন নিকট আত্মীয় না থাকায় যাবতীয় প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে এগিয়ে এসেছে ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলা এসোসিয়েশন ও মালয়েশিয়া প্রবাসীরা।

 

কাইয়ুমের স্ত্রী মনোয়ারা বেগমের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা হলে কান্না জড়িত কন্ঠে তিনি জানান, তার স্বামী মৃত্যুতে তিনি খুবই অসহায় হয়ে পড়েছেন। ১২-১৩ বছর প্রবাসে থেকেও নিজের থাকার বাড়িটিও করতে পারেনি। তিনি আরো বলেন, “আমার কোন ছেলে সন্তান নেই। এখন ২ মেয়ে নিয়ে আমি কোথায় যাব কি করব?

 

কাইয়ুমের একসময় জায়গা জমি সবই ছিল এখন কিছুই নেই। আমি এখন আমার বাপের বাড়িতে থাকি, কাইয়ুমের এখনও ৭-৮ লাখ টাকা ঋন রয়েছে। এগুলো কিভাবে পরিশোধ করবো বুঝতে পারছি না চোখে মুখে অন্ধকার দেখছি।” মালয়েশিয়া প্রবাসীদের কাছে আন্তরিক সহযোগিতা চেয়েছে কাইয়ূমের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম।

 

এবিষয়ে মালয়েশিয়ার ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা এসোসিয়েশন এর সভাপতি মোঃ নাজমুল ইসলাম বাবুল জানান, একসময় কাইয়ুমের আর্থিক অবস্থা ভাল ছিল। বিভিন্ন কারণে তার আর্থিক অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। বর্তমানে তার পরিবারের অবস্থা খুবই খারাপ। সংগঠনের সদস্য সহ সকল প্রবাসীর কাছে অর্থিক সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। কাইয়ূমের মরদেহ দেশে পাঠাতে ১ লাখ টাকার প্রয়োজন।

 

তাছাড়াও তার পরিবারের চলার মত কিছুটাকা সহযোগিতা করা প্রয়োজন। টাকা সংগ্রহ শুরু করা হয়েছে। যদি কোন হৃদয়বান ব্যাক্তি আর্থিক সাহায্য করতে চান তাহলে হোয়াট’স অ্যাপ ০০৬০ ১২-৩১০ ০৪৭২ নাম্বারে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করেছেন মালয়েশিয়ার ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা এসোসিয়েশন এর সভাপতি মোঃ নাজমুল ইসলাম বাবুল।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: