শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৮:৪২ পূর্বাহ্ন

ওমানে ৭ ঘণ্টার ব্যবধানে বাংলাদেশি দুই আপন ভাইয়ের মৃত্যু

প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, ৩ জুন, ২০২১, ৪:৫৪ অপরাহ্ন

ওমানে ক’রো’নাভা’ইরা’সে আ’ক্রা’ন্ত হয়ে মাত্র সাত ঘণ্টার ব্যবধানে দুই সহোদরের মৃ’ত্যু হয়েছে। তারা হলেন- চট্টগ্রামের রাউজানের চিকদার ইউনিয়নের আবদুল আলীর বাড়ির মৃ’ত সোলতান আহমদের ছেলে আবুল কালাম (৬২) ও আবুল কাশেম (৫২)। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত দশটায় মাস্কাট সিটির কৌলা হাসপাতালে আবুল কালাম ও একই সিটির রয়েল হসপিটালে আবুল কাশেম ভোর পাঁচটার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা’রা যান। উভয়ে ক’রো’নায় আ’ক্রা’ন্ত হয়ে চিকিৎসাধীন ছিলেন বলে তাদের পরিবার নিশ্চিত করেছে।

 

তারা উভয়ে মাস্কাট সিটির আমরাত নামক স্থানে বসবাস করতেন। সরজেমিনে দেখা গেছে, আবুল কালাম দীর্ঘ ৩৮ বছর ধরে ওমানে বসবাস করে আসছেন। এখানে তার স্ত্রী-সন্তানরাও রয়েছেন। তিনি পেশায় একজন ব্যবসায়ী। দুই পুত্র ও এক কন্যা সন্তানের জনক ছিলেন তিনি। মৃ’ত অপর ভাই আবুল কাশেমও বড় ভাইয়ের সঙ্গেই একই বাসায় থাকতেন। তবে, তার পরিবার দেশে থাকে। তিনি তিন কন্যা সন্তানের জনক, পেশায় ব্যবসায়ী।

 

আবু জাফর নামক তাদের এক ভাতিজা বলেন, আমরা যেখানে বসবাস করি এই এলাকায় কমবেশি সবাই ক’রো’না’য় আ’ক্রা’ন্ত ছিলেন। ঈদের কয়েকদিন আগে থেকে তাদের মধ্যে ক’রো’নার লক্ষণ দেখা যায়। প্রথমে প্রাথমিক চিকিৎসা, পরে অক্সিজেনের পরিমাণ কমে গেলে প্রাইভেট ক্লিনিকে, একদম শেষে সরকারি হাসপাতালের আইসিইউতে ভ’র্তি করানো হয়। সেখানেই তাদের দু’জনের মৃ’ত্যু হলো। মৃ’ত আবুল কালামের বড় ছেলে সাইফুদ্দিন কামাল বলেন, ‘বাবা হাসপাতালে যেতে চাননি। তিনি বলেছেন তোমাদের দেখে দেখে ম’রে যাব। বাসায় থাকব। আমরা জো’র করে অনেকটা হাসপাতালে ভর্তি করিয়েছিলাম। এক কঠিন বাস্তবতা আমরা হাসপাতালে দেখারও সুযোগ পাইনি। অবশেষে মৃ’ত্যুর পর লা’শ’টা দেখতে পাচ্ছি।’

 

চট্টগ্রাম সমিতি ওমানের সভাপতি ইয়াসিন চৌধুরী সিআইপি বলেন, ‘দুই ভাইয়ের একই দিনে প্রবাসে মাটিতে মৃ’ত্যু খুবই হৃ’দয় বি’দার’ক ঘটনা। তাদের এমন মৃ’ত্যু হলো লা’শগু’লোও নিজ দেশে নেয়া যাবে না। এখানেই দা’ফন করতে হবে। আমরা কমিউনিটির পক্ষ থেকে তাদের দা’ফন কা’ফনসহ নানাভাবে পাশে থেকে সহযোগিতা করে যাচ্ছি। উল্লেখ্য, ক’রো’না আ’ক্রা’ন্ত হয়ে মা’রা গেল আরব রাষ্ট্রগুলোতে লা’শ দেশে নিয়ে যাওয়ার অনুমতি নেই।

 


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: