শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:৪১ অপরাহ্ন

বিয়ের পিঁড়িতে বসা হলো না এএসআই সালাউদ্দিনের, বাড়িতে কাঁদছে বাবা

প্রকাশিতঃ শুক্রবার, ১১ জুন, ২০২১, ৫:৩০ অপরাহ্ন

‘ইরে-বাবা, কয়রে বাবা, বাবা তুই কই। তুইতো বাড়ি আসবি বলেছিলে, লা’শ হয়ে ফিরলি কেন? আমিতো তোকে লা’শ হয়ে দেখতে চাইনি’। শুক্রবার (১১ জুন) রাত ৯টার দিকে মুঠোফোনে এভাবে কেঁ’দে কেঁ’দে উত্তর দিলেন চট্টগ্রামে নি’হত এএসআই কাজী মো. সালাহ উদ্দিনের বাবা কাজী নাদেরুজ্জামান পাটওয়ারী। ছেলের শো’কে তার কা’ন্না কেউই থামাতে পারছে না। কা’ন্না থা’মানের ভাষা খুঁজে পাচ্ছে না আত্মীয়-স্বজনরা।

 

জানতে চাইলে বীর মুক্তিযো’দ্ধা কাজী নাদেরুজ্জামান পাটওয়ারী বলেন, গত পরশু আমার সঙ্গে সালাহ উদ্দিনের কথা হয়েছে। আগামী সপ্তাহে বাড়িতে আসবে বলেছিল। কিন্তু আমার সালাহ উদ্দিন লা’শ হয়ে বাড়িতে ফিরেছে। তাঁরা আমার সালাহ উদ্দিনকে জীব’ন্ত বাড়ি ফিরতে দিল না। নিহ’ত এসআই সালাউদ্দিন লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার হাজিরপাড়া ইউনিয়নের দক্ষিণ জয়পুর গ্রামের বাসিন্দা। শুক্রবার বিকেলে পারিবারিক ক’বরস্থানে তাঁর ম’রদেহ দা’ফন করা হয়েছে। এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) মংনেথোয়াই মারমা ও চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একে ফজলুল হক উপস্থিত ছিলেন।

 

জানা গেছে, মা’দ’ক পরিবহনের খবরে একটি মাই’ক্রো’বাসকে চট্টগ্রামের চান্দগাঁও থানার কাপ্তাই রাস্তার মাথায় থা’মার জন্য সালাহ উদ্দিন সং’কে’ত দেয়। কিন্তু মাইক্রোবাসটি না থামিয়ে উ’ল্টো তাকে পি’ষে দিয়ে চলে যায়। পরে তাকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃ’ত ঘোষণা করেন। সালাউদ্দিন একই থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) ছিলেন। তাঁর বাবা কাজী নাদেরুজ্জামান অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কনস্টেবল।

 

সালাহ উদ্দিনের মামাতো বোন শাহনাজ আক্তার বিন্দু বলেন, আমার ভাইয়া প্রায় ১৫ বছর পুলিশে চাকরি করে। তার বিয়ে ঠিক হয়েছিল। তিনি বাড়িতে আসলে বিয়ের তারিখ ঠিক করার কথা ছিল। মামার সঙ্গে তাঁর শেষ বুধবার কথা হয়েছে। ভাইয়া আগামী সপ্তাহে আসবেন বলে জানিয়েছেন। কিন্তু ভাইয়াকে লা’শ হয়ে ফিরতে হলো। মামার কা’ন্না থামানো যাচ্ছে না। ভাইয়াকে যারা ‘হ”ত্যা’ করেছে, আমরা তাদের উ’পযুক্ত বি’চার চাই।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: