বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৩:২৭ পূর্বাহ্ন

আদনানকে আইনী সহায়তার আশ্বাস দিলেন ব্যরিস্টার সুমন

প্রকাশিতঃ বুধবার, ১৬ জুন, ২০২১, ১১:৪৭ পূর্বাহ্ন

নি’খোঁজ আবু ত্বো-হা মুহাম্মদ আদনানকে খোঁজে দিতে আইনী সহায়তার আশ্বাস দিয়ে হাইকোর্টের ব্যরিস্টার সুমন বলেছেন, যদি তার পরিবারের কেউ আমার কাছে আসেন, আমি হাইকোর্টে মাম’লাটি রি’ট করতে চাই। যদি তাকে দু’একদিনে ভিতর না পাওয়া যায়, আর যদি সে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কারো কাছে থাকে, তাহলে হাইকো’র্টের অর্ডারে অবশ্যই তাকে সামনে আনতে বা’ধ্য হবে।

 

আজ বুধবার (১৬ জুন) বিকালে ব্যরিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের ফেসবুক পেজে এক ভিডিও বা’র্তায় এ আইনী সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি। এ সময় তিনি বলেন, পরীমনিকে ‘রে’প চেষ্টা করা হলো। বিষয়টি আ’দালত পর্যন্ত গড়ালো। সাথে সাথে এক দিনের মাথায় সকল আসা’মীকে গ্রে’ফ’তার করা হলো। প্রথম আলোর সাংবাদিক রোজিনাকে যখন এরে’স্ট করা হলো। সারা বাংলাদেশের আমরা সবাই ফে’টে পড়লাম। তারপর তার মু’ক্তি হল।

 

আপনারা জানেন, আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান নামের একজন হুজুর,-যিনি ওয়াজ করতেন। আমি জীবনেও তাকে দেখিনি। কোনদিন তার ওয়াজ শুনিনি। কিন্তু চারদিন ধরে দেখলাম তিনি নি’খোঁজ। তার স্ত্রী দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। একটি জি’ডিও করেছেন। কিন্তু তিনি, তার ড্রাইভার এবং দুজন সঙ্গিসহ চারজনকে চারদিন ধরে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি বলেন, আমার কথা হচ্ছে যে, পরিমনির জন্য আমরা সারা দেশের মানুষ যেভাবে ঝা’পিয়ে পড়লাম। আমি নিজেও ঝাঁ’পিয়ে পড়েছি। আমিও প্রতি’বাদ করেছি। এভাবে-ধরেন হুজুর বাদই দেন! একজন সাধারন মানুষও যদি হা’রিয়ে যায়। তাহলে কি তিনি নিজে নিজে হা’রিয়ে গেলেন? নাকি তাকে কেউ অ’পহ’রণ করল? নাকি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আছে? এটা তো আসলে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পরিষ্কার করতে হবে। যে সে কার কাছে আছে?

 

যদি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বলতে চান যে, তাদের কাছে নেই। তাকে এ’রে’স্ট করা হয়নি। তার কোনো মামলা থাকলে তাকে এরেস্ট করতে পারেন। তার কোনো অ’পরা’ধ থাকলে তাকে আ’দালতের স’ম্মুখী’ন করতে পারেন। আইনের আশ্রয় নিতে পারেন। কিন্তু এই চারদিন ধরে তাকে না পাওয়াটা সাধারণ মানুষ হিসেবে আমরা একটি অ’শনি’সং’কেত বলে মনে করি। তিনি বলেন, সরকারের জন্য এটি একটি ব’দনা’মের বিষয়। সরকার তো অবশ্যই এ ধরনের ব’দনা’ম নেয়ার কথা না। কোথাও থেকে চারজন মানুষকে চারদিন ধরে পাওয়া যাচ্ছে না। বা পাওয়া যাবে না। এটা হতে পারে না। আসলে সোশ্যাল মিডিয়া ছাড়া কোন পত্র-পত্রিকায় আমি বিষয়টি ততটা দেখিনি। আমার চোখে পড়েনি।

 

তিনি বলেন, এটার দায়িত্ব কিন্তু পুলিশ প্রশাসনের। তাকে খুঁজে বের করা যে, তিনি কোন জায়গায় আছে? সেতো এমন হতে পারে যে, সে নিজে গুম হয়ে থাকতে পারে। অথবা তাকে কেউ গু’ম করতে পারে। অথবা পুলিশ বাহিনী বা যে কোন বাহিনীর কাছে তিনি থাকতে পারেন। যাই হোক না কেন! উচিত হবে, যত দ্রুত সম্ভব ন্যায়বিচারের স্বার্থে তাকে হাজির করা। না হয় বাংলাদেশের আইনে যে বি’চার আছে, সেই বি’চারের প্রতি মানুষ উদাসীন হয়ে যাবে। হ’তাশ হয়ে যাবে।

 

তিনি বলেন, আজকে চারজন হা’রিয়ে’ছে। এখানে আসলে হা’রানো’র বিষয় নয়; এটা হলো মানুষের মনে যদি এ ধারণা তৈরি হয়ে যায় যে, এখানে গুম হয়ে গেলে আর বের হয়না। মানুষ তাহলে আ’তঙ্কি’ত হয়ে যাবে। এটা দেশের জন্য ভালো কাজ হবে না। এটা আইনের পরিপ’ন্থী কাজ। এটা আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির জন্য ও শুভ হবে না।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: