শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৬:১৯ অপরাহ্ন

বার বার ধরা পরার পরও থামছেন না গার্লস স্কুলের দুই শিক্ষক

প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, ২২ জুন, ২০২১, ৯:৫৫ পূর্বাহ্ন

নওগাঁর ধামইরহাট উপজেলার শহীদ আব্দুল জব্বার মঙ্গলবাড়ি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ ও সহকারী প্রধান শিক্ষক সুমাইয়া উম্মে শামসি’র মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে অ’নৈতিক সম্পর্ক চলছে। তাদের অ’নৈতিক কর্মকা’ণ্ডের কারণে ভে’ঙে পড়েছে বিদ্যালয়ের শিক্ষা ব্যবস্থা।

 

স্থানীয়রা জানায়, এই দুই শিক্ষককে বারবার আপ’ত্তি’কর অবস্থায় হাতেনাতে আ’ট’ক করা হয়েছে। তবু তারা থামছেন না। অ’নৈতিক র্কমকা’ণ্ডের জন্য এর আগে কয়েকবার তাদের অ’বরু’দ্ধ করে রাখা হয়। কিন্তু প্রভাবশালীদের হস্তক্ষে’প ও টাকার জো’রে প্রতিবার পার পেয়ে যান তারা। এমনকি এ দুই শিক্ষকের বি’রু’দ্ধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অ’ভিযো’গ করেও লাভ হয়নি। উল্টো অ’ভিযো’গকারীকে মি’থ্যা মাম’লায় জ’ড়িয়ে হ’য়রা’নি করা হচ্ছে।

 

১৯৯৬ সালে নওগাঁর সীমান্তবর্তী ধামইরহাট উপজেলার মঙ্গলবাড়ি গ্রামের প্রতিষ্ঠিত হয় শহীদ আব্দুল জব্বার মঙ্গলবাড়ি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়। সেই থেকে সুনামের সঙ্গেই চলছিল বিদ্যালয়টির কার্যক্রম। ২০০১ সালের ৩ জানুয়ারি প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব নেন আবুল কালাম আজাদ। পরের বছর সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন সুমাইয়া উম্মে শামসি। এরপর থেকেই অ’বৈধ সম্প’র্কে জ’ড়ি’য়ে পড়েন দুই শিক্ষক।

 

অনুস’ন্ধানে জানা গেছে, আবুল কালাম আজাদ প্রধান শিক্ষক হওয়ার আগে জয়পুরহাটে গ্রামীণ ব্যাংকের দোগাছী শাখায় মাঠকর্মী হিসেবে চাকরি করতেন। সে সময় নারি কেলেঙ্কির কারণে চাক’রিচ্যুত হন। চলতি বছরের জানুয়ারিতে জয়পুরহাটের একটি বাসায় সহকারী প্রধান শিক্ষক সুমাইয়া উম্মে শামসির সঙ্গে আপ’ত্তিকর অ’বস্থায় হা’তেনাতে ধ’রা পড়েন তিনি। এর আগে, গত বছরের এপ্রিলে রাজশাহীতে একটি প্রশিক্ষণে ও নভেম্বরে নিজ বাসায় ওই নারী শিক্ষকের সঙ্গে অ’নৈতিক সম্প’র্কে লি’প্ত হন আবুল কালাম আজাদ। তখনও তাদের আ’প’ত্তিকর অবস্থায় হা’তেনা’তে আ’টক করে স্থানীয়রা।

 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ক’রো’নাভা’ইরা’সের কারণে দীর্ঘদিন ধরে সারাদেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। এর মধ্যেই বন্ধ স্কুলে কোনো কারণ ছা’ড়াই ঘণ্টার পর ঘণ্টা সময় কাটান দুই শিক্ষক। গত ২০ মার্চ স্থানীয়রা তাদের আ’প’ত্তিক’র অবস্থায় দেখে ফে’লে এবং অ’বরু’দ্ধ করে রাখে। পরে প্রভাবশালীদের হ’স্তক্ষে’পে মু’ক্ত হন তারা। এরপর এক সাংবাদিক ও পাঁচ শিক্ষকের বি’রু’দ্ধে চাঁ’দাবা’জির মি’থ্যা মাম’লা করেন অ’ভিযু’ক্ত আবুল কালাম আজাদ। জাহানপুর ইউনিয়নের মেম্বার ওবাইদুল ইসলাম বলেন, স্কুল বন্ধ। কিন্তু আবুল কালাম আজাদ এবং ওই শিক্ষক প্রতিদিন স্কুলে আসেন। অনেকক্ষণ ভেতরে থাকেন তারা। হা’তেনা’তে ধ’রা পড়ে এখন নি’রী’হদের বি’রু’দ্ধে মি’থ্যা মা’ম’লা করেছেন আবুল কালাম আজাদ।

 

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সভাপতি খাজা ময়েন উদ্দিন বলেন, প্রধান শিক্ষকের নারী কে’লেঙ্কা’রির বিষয়ে সবাই জানে। ২০ মার্চ স্কুলের ভেতরেই হা’তেনা’তে ধ’রা পড়ায় তারা নিরীহ শিক্ষক-সাংবাদিকদের বি’রু’দ্ধে মি’থ্যা মা’ম’লা করেছেন। অ’ভিযু’ক্ত প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ বলেন, বিদ্যালয়ের কমিটি গঠন নিয়ে দ্ব’ন্দ্ব চলছে। ২০১২-১৫ সাল পর্যন্ত খাজা ময়েন উদ্দিন বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ছিলেন। পরেরবার তিনি নির্বাচিত হতে পারেননি। এ কারণে আমার বি’রু’দ্ধে মি’থ্যা অ’ভিযো’গ র’টাচ্ছেন। আমি কোনো না’রী কে’লে’ঙ্কা’রির স’ঙ্গে জড়িত নই।

 

এ বিষয়ে অ’ভিযু’ক্ত সহকারী প্রধান শিক্ষিকা সুমাইয়া উম্মে শামসির মোবাইলে বারবার কল ও মেসেজ পাঠালেও তিনি কোনো সদুত্তর দেননি। ধামইরহাটের ইউএনও গনপতি রায় বলেন, শহীদ আব্দুল জব্বার মঙ্গলবাড়ি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ ও সহকারী প্রধান শিক্ষক সুমাইয়া উম্মে শামসি’র অ’নৈ’তিক সম্প’র্কের বিষয়ে অ’ভিযো’গ পেয়েছি। তদন্তের জন্য তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। প্রতিবেদন পেলেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: