শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ১০:১৯ পূর্বাহ্ন

মাংস বেশি খাওয়া নিয়ে সংঘর্ষ, বিয়ের রাতেই সেই নববধূকে তালাক

প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২১, ৭:১৪ পূর্বাহ্ন

চুয়াডাঙ্গায় বিয়ে বাড়িতে মাংস বেশি খাওয়াকে কে’ন্দ্র করে বরপক্ষ ও কনেপক্ষের মধ্যে ‘সংঘ’র্ষের ঘটনা ঘটে। আর এই সং’ঘর্ষে’র জের ধ’রে নববধূকে তালাক দেওয়া হয়েছে। গত রোববার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে সদর উপজেলার বদরগঞ্জ দশমিপাড়ায় এ ঘটনার পর রাতেই দুইপক্ষের সমঝোতার ভি’ত্তিতে বিয়ে বি’চ্ছে’দের সিদ্ধান্ত হয়।

 

জানা গেছে, গত রোববার বিকেলে বরপ’ক্ষের তিনজনকে পি’টিয়ে আ’হত করে কনেপক্ষের লোকজন। আহ’তরা হলেন- সদর উপজেলার সরোজগঞ্জের বোয়ালিয়া গ্রামের আলমগীর আলী ছেলে শাহ জামাল (২৮), একই এলাকার মৃ’ত গোলাম রাব্বানীর ছেলে ফারুক হোসেন (৩৫) ও আব্দুর রহিমের ছেলে আসমান আলী (৩৫)। আ’হতদের মধ্যে শাহ জামালকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভ’র্তি করা হয়েছে। বাকিরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন।

 

বরপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, বদরগঞ্জ দশমিপাড়ার রহিম আলীর ছেলে সবুজের সঙ্গে গত রোববার একই এলাকার নজরুল ইসলামের মেয়ে সুমি খাতুনের বিয়ের অনুষ্ঠান চলছিল। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষে বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বরপক্ষের লোকজনকে খেতে দেওয়া হয়। বর সবুজের সঙ্গে খেতে বসেন তার বন্ধুসহ আত্মীয়-স্বজনরা। খাওয়া শেষ হওয়ার মু’হূর্তে বরপক্ষের লোকজন আরও মাং’স চান।

 

আরও মাং’স দিতে কনেপক্ষ অপরা’গতা প্রকাশ করলে উভয়পক্ষের বা’গ’বিত’ণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে দুপক্ষের মধ্যে উ’ত্তেজনা শুরু হলে কনেপক্ষের লোকজন বরপক্ষের তিনজনকে লা’ঠি দিয়ে পি’টিয়ে আহ’ত করেন। এ ঘটনায় কনেপক্ষের লোকজনের অভি’যোগ, বরপক্ষের লোকজন ভাত না খেয়ে শুধু মাং’স খেতে থাকেন।

 

বারবার মাং’স চাওয়াতে তারা পরে দেবেন বলে জানালে বরপক্ষের লোকজন তাদের ওপর চ’ড়াও হন। তারা তাদের সঙ্গে খারাপ আচ’রণ করেন। যদিও এ ঘটনায় পুলিশে অভি’যোগ করেনি কোনোপক্ষই। চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন জানান, এই বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: