শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৩:৪৮ অপরাহ্ন

কাতারে এসে কোম্পানি বা কফিল খুঁজে না পেলে যা করনীয়

প্রকাশিতঃ বুধবার, ২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৫:৩৬ অপরাহ্ন

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতারে আসার পর অনেক প্রবাসী বাংলাদেশি প্রশ্ন করেন, আমি ফ্রি ভিসায় এসেছি। কিন্তু এখন কোম্পানির অফিস বা কোনো কফিল খুঁজে পাচ্ছি না। দেশে থাকাকালে যার কাছ থেকে ভিসা কিনেছি, সে বারবার কথা ঘোরাচ্ছে, কিন্তু কোনো বৈ’ধ আইডি বা কাজ পাচ্ছি না। তবে এমতাবস্থায় আমার কী করণীয়? এ ধরণের জিজ্ঞাসার উত্তরে বলতে হয়, বিশেষত কাতারে আসার পর এ সমস্যায় যারা ভো’গেন, তাদের জন্য মনে রাখতে হবে, কাতারের আইনে ফ্রি ভিসা বলতে কিছু নেই। কারণ কাতারের শ্রম আইনে বলা আছে, যে কোম্পানি বা ব্যক্তির তত্ত্বাবধানে আপনার নামে ভিসা ইস্যু করা হয়েছে, আপনাকে সেখানেই কাজ করতে হবে। ওই কোম্পানি বা ব্যাক্তি ছাড়া অন্যত্র কাজ করা অ’বৈধ।

 

কাতারে আসার সময় যে কোম্পানির নামে আপনার ভিসা ইস্যু করা হয়েছে, ওই কোম্পানির কাউকে পাওয়া না গেলে প্রথমে আপনি হাজির হবেন শ্রম মন্ত্রণালয় বা লেবার মিনিস্ট্রির লেবার অফিসে। দোহার দাফনায় অথবা সা’নাইয়ার আলআতিয়াসহ বিভিন্ন জায়গায় এই লেবার অফিসের শাখা রয়েছে। এখানে যাওয়া সম্ভব না হলে অথবা এখানে সহযোগিতা না পেলে সরাসরি যেতে হবে কাতার পুলিশের সিআইডি অফিসে। সিআইডি অফিসে একটি আলাদা শাখা রয়েছে, যেটিকে টেকনি’ক্যাল বিভাগ বা আরবিতে ‘মাকতাব ফন্নি’ বলা হয়ে থাকে।

 

সেখানে ভিসার কপি দেখানোর পর তারা ওই কোম্পানির মালিক এবং অফিসের নম্বর বের করে দেবে। এরপর আপনি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। মনে রাখবেন, আপনি যে ব্যক্তি বা কোম্পানির ভিসায় এসেছেন, ওই কোম্পানি বা ব্যক্তি ছাড়া আপনি বৈধ পরিচয়পত্র বা আইডি (ইকামা) পাবেন না। যদি ওই কোম্পানি বা ব্যক্তি আপনাকে সহযোগিতা না করে অথবা ফোনে সাড়া না দেয়, তবে আবারও সিআইড অফিসে যেতে হবে। সেক্ষেত্রে কাতার পুলিশ আপনাকে প্রয়োজনীয় সহায়তা দেবে। নিজে আরবি না জানলে আরবি ভাষায় একটি আবেদনপত্র টাইপ করিয়ে ভিসার কপিসহ নিয়ে যাবেন। সাধারণত বাংলাদেশি কর্মীদের মনে কাতার পুলিশ সম্পর্কে যে ভয় রয়েছে, তা অ’মূলক। ভয় পেয়ে সিআইড অফিসে না গিয়ে কারও ওপর ভরসা করে লুকিয়ে থাকলে আপনি নিজেই ক্ষ’তিগ্র’স্ত হবেন।

 

বরং কাতারে আসার পর তিনমাসের মধ্যে যদি আপনার ভিসায় উল্লেখিত কোম্পানি বা ব্যক্তি আপনার জন্য আইডি ইস্যু করার ব্যবস্থা না করে, তবে সেক্ষেত্রে আপনার উচিত, তাদের বিরু’দ্ধে পুলিশের কাছে অভি’যোগ করা।এই বিষয়ে কখনো কোনো অবহে’লা করবেন না, আপনার পাশে কাউকে অবহেলা করতে দেখলে সত’র্ক করবেন। কারণ, আপনার জন্য আইডি ইস্যু করা ও আপনাকে কাজ দেওয়া ওই ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের উপর অবশ্য কর্তব্য। এটি না করলে কাতারের আইনে তার বিরু;দ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর আপনি যত দেরি করবেন, তত আপনি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।

 

অনেকে অভি’যোগ করেন, বাংলাদেশ থেকে আসার আগে ছয়-সাত লাখ টাকা খরচ করেছেন। এখন ভিসায় ভালো কাজ না পেলে কিন্তু মনে রাখতে হবে, যেহেতু এই টাকা আপনি বাংলাদেশে দিয়েছেন, কাজেই এর বিরু’দ্ধে কাতারে অভিযো’গ করে সুফল নাও পেতে পারেন। কারণ, ভিসা বিক্রি বা কেনা একটি দ’ন্ড’নীয় অ’পরা’ধ। আর কাতারের সীমানার বাইরে সংঘ’টিত অ’পরা’ধে কাতারের আইনি কর্তৃপক্ষ চাইলেও কিছু করার সুযোগ নেই। তবে বাংলাদেশে এ সম্পর্কিত লেনদেনের প্রমাণ থাকলে আপনি সরাসরি বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম শাখায় অভিযোগ দায়ের করতে পারেন। জেনে রাখা ভালো, কাতারে কাজ করতে এসে কারও ভয়ে অ’বৈধভাবে কখনো লুকিয়ে থাকবেন না। কারও মিথ্যা আশ্বাসে বিশ্বাস করে নিজেকে ক্ষ’তিগ্র’স্ত করবেন না। বরং যত দ্রুত আপনি আইনের সহায়তা নেবেন, ততই আপনার মঙ্গল।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: