বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ১১:৪২ পূর্বাহ্ন

ঢাবি ভর্তি পরীক্ষায় প্রথম হয়ে ‘থাপ্পড়’ খেতে হলো জাকারিয়াকে!

প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, ২ নভেম্বর, ২০২১, ৭:০৪ অপরাহ্ন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খ ইউনিটের (কলা অনুষদ) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় প্রথম হওয়া মো. জাকারিয়াকে নাজেহালের অভি’যোগ উঠলো একটি কোচিং সেন্টারের বি’রু’দ্ধে। নিজেদের ছাত্র দা’বি করে জো’র করে তাকে নিয়ে যেতে চেয়েছিল আইকন প্লাস নামের একটি কোচিং সেন্টার। তাতে রাজি না হওয়ায় তাকে নাজেহাল ও গায়ে হাত তো’লার ঘটনা ঘটিয়েছে কোচিং সেন্টারটি এমন অভি’যোগ করেছেন জাকারিয়া।

 

যদা’ও কোচিং সেন্টারের তরফ থেকে শারী’রিক নি’র্যা’ত’নের এই অভি’যোগ প্র’ত্যাখ্যা’ন করা হয়েছে। তবে জাকারিয়াকে নিজেদের কোচিংয়ের শিক্ষার্থী দা’বি করার বিষয়টি স্বীকার করে সেটি ভু’লে হয়েছে বলে দা’বি তাদের! মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদভুক্ত ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়। এতে ১২০ নম্বরের মধ্যে ১০০ দশমিক ৫ নম্বর পেয়ে প্রথম স্থান পান ঢাকার ডেমরার দারুন্নাজাত সিদ্দিকিয়া কামিল মাদ্রাসা থেকে পাস করা শিক্ষার্থী জাকারিয়া।

 

এরপর বিকালে এক ফেইসবুক পোস্টে তিনি লেখেন, তিনি যে কোচিং সেন্টারে কোচিং করেছিলেন, সেখানে গেলে অন্য একটি কোচিং সেন্টারের লোকজন তাকে তাদের শিক্ষার্থী বলে পরিচয় দেয়ার জন্য জ’বরদ’স্তি শুরু করে। জাকারিয়া জানান, তিনি ফোকাস কোচিং সেন্টারের উত্তরা শাখায় কোচিং করেছিলেন। তিনিসহ উ’ত্তীর্ণদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়েছিল কোচিং সেন্টারটির ফার্মগেট শাখায়।

 

সেখানেই অন্য একটি কোচিং সেন্টারের লোকজন ঢুকে তাকে নিয়ে যেতে চেয়েছিল বলে অভি’যোগ করেন তিনি। ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি লেখেছেন, আমারেও বাইরে নেওয়ার চেষ্টা করল কিন্তু যাইনি। এক পর্যায়ে টানাটা’নি। তাতেও না নড়ায় এক কালো পা’ন্ডা মাথায় থা’প্পড় দিল। ফেইসবুক পোস্টে অন্য কোচিং সেন্টারটির নাম না বললেও পরে গণমাধ্যমকে ‘আইকন প্লাস’ নামে একটি কোচিং সেন্টারের লোকজন ঘটনাটি ঘটিয়েছে বলে জানান তিনি। তার কথা, আমি ফোকাস নামে একটি কোচিং সেন্টারে কোচিং করেছিলাম। বিকেলে ফোকাসের অফিসে যাই।

 

তখন কিছু লোক জোর করে রু’মে ঢুকে আমাকে বের করে নিয়ে আসার চেষ্টা করে। তারা আমাকে আইকন প্লাসে কোচিং করেছি এমন স্বীকারো’ক্তি দেয়ার জন্য জো’র করে। আমি রাজি না হলে হু’মকি-ধম’কি ও থা’প্পড় মে’রে চলে যায়। এ বিষয়ে অভি’যুক্ত আইকন প্লাস কোচিং সেন্টারের পরিচালক কামাল হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ফার্মগেইট বিটিআই ভবনের ছয় তলায় আমাদের অফিস, আর দুই তলায় ফোকাসের অফিস। বিকালে আমরা অফিস থেকে নামার সময় দেখি ওখানে অনেক মানুষের ভি’ড় আর স্থানীয় কিছু পোলাপান হৈ-হুল্লো’ড় করতেছে। পরে আমি সেখান থেকে চলে আসি। মা’রধ’রের অভি’যোগের সত্যতা আমার জানা নেই।

 

এদিকে ‘খ’ ইউনিটের ফল প্রকাশের পর আইকন প্লাস যাত্রাবাড়ী শাখার পরিচালক মোহাম্মদ লিমন এক ফেইসবুক স্ট্যাটাসে দা’বি করেন, প্রথম স্থান অর্জন করা শিক্ষার্থী তাদের ওখানে কোচিং করেছে। পরে জাকারিয়া তার ফেইসবুকে বিষয়টি শেয়ার করে লেখেন, ‘হুদাই। আমি একটা ফ্রি ক্লাস করছিলাম। তখন ওরা পরী’ক্ষা নিছিল। ওখানে ফার্স্ট হইছিলাম। ফ্রি ক্লাস করলেই কোচিং এর ছাত্র হয় এটা জানতাম না। এ বিষয়ে আইকন প্লাসের পরিচালকের কথা, আমাদের একজন পরিচালক এটা দা’বি করেছিল। কিন্তু আমরা আইকন প্লাসের মূল পেইজ থেকে এটা দা’বি করিনি।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: