মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৮:৪৭ পূর্বাহ্ন

একজন অপরাধী মা বলছি: ভিডিও কলে অসহায় মায়ের হাহাকার

প্রকাশিতঃ বুধবার, ১০ নভেম্বর, ২০২১, ১:৫৪ অপরাহ্ন

একজন কর্মজীবী মায়ের হাহাকার শি’রোনাম হলেও এটা আসলে একজন মায়ের নয়, এই শহরের শত সহ’স্র মায়ের বুকেরটা খা খা করে ওঠ্যে যখন প্রিয় সন্তানকে রেখে অফিস যেতে হয়। এমনই একটি অ’ন্তরালে থাকা বাস্তবতাকে নেটি’জেনদের সামনে এনেছেন তাসনিম কবির নামের এক তরুণী মা। নিজের ফেসবুকে সন্তানকে লেখা একটি বুক হাহাকার করা লেখা পোস্ট করেছেন। এই লেখার নাম দিয়েছেন ‘একজন অপ’রাধী মা বলছি!’

 

লেখার শুরুতে বলেছেন তাসনিম, ‘সকাল বেলা আজ জরুরি মিটিং, তাই রাসিনকে তড়িঘড়ি না’স্তা ক’রিয়ে দিয়ে বের হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছি, কিন্তু রাসিন কিছুতেই আমাকে যেতে দিবেনা, পা ধ’রে আছে। যদিও এই কাজটা অনেক বেশি কঠিন, তবুও আমি তাকে ফাঁ’কি দিয়ে বের হয়ে যাই ওকে ওর নানুর কাছে রেখে, কাজের মেয়েটা যখন দরজা লাগা’চ্ছে কানে আসছে আমার ছেলের কা’ন্না, ” মা আমায় নেয় নি”!

 

তাসনিম লিখেছেন, বুকের ভিতর চিনচিনে ব্যথা নিয়ে শু’নেও না শোনার ভা’ন করে নেমে গেলাম লিফট দিয়ে, এ যেন নিজেই নিজের মনকে বুঝ দেয়ার বৃ’থা আ’স্ফালন! এরপর গাড়িতে আম্মুর ভি’ডিও কল পাই, ভিডিও তে যা দেখি—আমার ফেরেশতার মতো রাসিন আমার ও’ড়না জ’ড়িয়ে আমার ওয়াশরুমের সামনে মাটিতে শু’য়ে আছে, আম্মু কা’ন্না করছে! আমাকে ব’কা দিচ্ছে! আমার ভিতরটা হা’হাকার করে উঠল!

 

মায়ের বরাত দিয়ে তাসনিম কবির বলেন, আম্মু জানাল, আমি যাওয়ার পর রাসিন কোথাও থেকে আমার ব্যবহার করা এই ওড়নাটা বের করে এটার ঘ্রা’ণ নিচ্ছিল আর ফু’পিয়ে ফু’পিয়ে বলছিল, “মা আমায় নেয় নি” আম্মু তখন ওকে বলল “মা ট’য়লে’টে গেছে, তোমাকে নিয়ে যাবে বের হয়েই” এই কথা বলে আম্মু রাসিনের জন্য ফি’ডার আনতে কিচেনে যায়, কিছুক্ষণ পর এসে দেখে এই দৃশ্য! আমি ওয়া’শরু’মে আছি জেনে সে দরজার সামনেই পাহারা দিতে দিতে ঘুমিয়ে পরে এই ভ’য়ে যে আবার ওকে মা ফে’লে যায় কিনা !

 

তাসনিম জারা বলেন, ভি’ডিও কলে আম্মু ব’কা দিচ্ছিল ওকে কেন এত ক’ষ্ট দেই আমি! আমি নি’শ্চুপ! এরকম নি’শ্চুপ আমাকে থাকতে হয় অনেক সময়েই, অনেক কর্মজীবি “মা” দের মতন! মাঝেমাঝে ভাবি সব কাজ বাদ দিয়ে ওকে বু’কে নিয়ে থাকি! কিন্তু কর্মময় এই জীবনে আমারো আছে ছোট ছোট কিছু স্বপ্ন!

 

কঠিন বাস্তবতার কথা উল্লেখ করে তাসনিম কবির বলেন, তাই প্রতিদিন আমার নিরন্তর যু’দ্ধ চলে Motherhood + Work Life ব্যালেন্স করতে করতে, জানি না কতদিন পারব! দোয়া করবেন সবাই আমার ছোট্ট রাসিনের জন্য, সেইসাথে আমার ছোট ছোট স্বপ্নগুলোর জন্য! স্ব’প্নের দিকে এই পথচলা মাঝেমাঝে ভী’ষণ কঠিন মনে হয়। তাসনিম কবিরের এই পো’স্টে প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন ২১ হাজার সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারী। শতশত মন্তব্য আর হাজার হাজার শেয়ার যেন এক অব্য’ক্ত, অ’প্রকাশ্য কঠোর বাস্তবতাকে তীর্য’কভাবে আ’ঘা’ত করছে।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: