বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ১২:১৩ অপরাহ্ন

শিশু তানিশাকে হত্যায় সৎ মায়ের ফাঁসির আদেশ

প্রকাশিতঃ সোমবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২১, ৭:৫১ পূর্বাহ্ন

খুলনার তেরখাদায় ৫ বছরের শিশু তানিশা হ’ত্যা মা’ম’লায় সৎ মা তিথী আক্তার মুক্তাকে মৃ’ত্যুদ’ণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আ’দালত। একই সঙ্গে তাকে ১০ হাজার টাকা জ‌রিমা’না দেওয়া হয়েছে। সোমবার (১৫ নভেম্বর) খুলনা জেলা ও দা’য়রা জজ আদালতের বিচারক মশিউর রহমান চৌধুরী এ রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘো’ষণার সময় আসা’মি আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

 

আদালত সূত্রে জানা গেছে, তিথী আক্তার মুক্তা স্বামী খাজা শেখের অবর্তমানে প্রায়ই মোবাইল ফোন, ম্যাসেঞ্জার ও ইমোতে বিভিন্ন মানুষের সঙ্গে কথা বলত। এ নিয়ে তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব ও ঝগড়া লেগে থাকত। ফারাবী প্রসেনজিৎ নামক এক ব্যক্তির সঙ্গে বন্ধুত্ব ও ভয়েস চ্যা’টিংয়ের বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে দ্ব’ন্দ্ব একপর্যায়ে চরম আকারে পৌঁছে যায়। ২০২১ সালের ২ এপ্রিল ইমোতে তাদের মধ্যে ঝ’গড়া হয়। এতে স্বামী খাজা শেখ তাকে তালাকের হু’মকিও দেয়।

 

পরে ইমোতে খাজা তার মেয়েকে আদর সোহাগ করে ডাকতে থাকে। এ নিয়ে মু’ক্তার মধ্যে জ্বা’লা য’ন্ত্রণা আরও বেড়ে যায়। একপর্যায়ে তানিশাকে হ’ত্যার পরিকল্পনা করতে থাকে মুক্তা। এদিকে তানিশা রাতে মু’ক্তার সঙ্গে একই বিছানায় ঘু’মাতো। ঘটনার দিন (৬ এপ্রিল) রাতে তাদের মধ্যে আবারও ঝগ’ড়া হয়। একপর্যায়ে খাজা শেখ এলাকায় বিষয়টি জানিয়ে দেওয়ার হু’মকিও দেয়। স্বামীকে উচিত শিক্ষা দেওয়ার জন্য মুক্তা এ হ’ত্যাকা’ণ্ডটি ঘটিয়েছে বলে আদালতে ১৬৪ ধারা’য় ‘স্বীকারো’ক্তিমূলক জবানব’ন্দিও দিয়েছে।

 

জবা’নব’ন্দিতে তিনি আরও জানায়, ওই দিন রাতে বারান্দায় সেলাই মেশিনের ওপর একটি দা নিয়ে ঘরের ভেতরে প্রবেশ করে মুক্তা। সে সময় তানিশা খা’টে ঘুমিয়ে ছিল। ঘুমন্ত তানিশাকে দা দিয়ে গ’লায় ও মাথায় কু’পিয়ে জ’খম করে। দা’পাদা’পি’র শব্দ শুনতে পেয়ে দাদী ও চাচা এগিয়ে এলে দরজা খুলে ঘরের বাইরে চলে আসে মুক্তা। পরে পুলিশ এসে ঘটনাস্থল থেকে র’ক্তা’ক্ত অবস্থায় মুক্তাকে আ’টক করে। জ’ব্দ করা হয় হ’ত্যাকা’ণ্ডে ব্যবহৃত দা।

 

এদিকে শিশুটিকে উ’দ্ধার করে তাৎক্ষণিকভাবে তেরখাদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিক্যাল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে নেওয়ার পর চিকিৎসকরা তানিশাকে মৃ’ত ঘোষণা করেন। এ ব্যাপারে নি’হতে’র দাদা বাদি হয়ে তিথী আক্তার মুক্তাকে আসা’মি করে থানায় হ’ত্যা মাম’লা দা’য়ের করেন। এ বছরের ৩১ মে মাম’লার তদন্ত কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম তিথী আক্তার মুক্তাকে আসা’মি করে এ হ’ত্যা মাম’লা চার্জশিট দা’খিল করেন। আদালতে মোট ২২ জন স্বাক্ষ্য দিয়েছেন।

 

নিহ’ত’ তানিশার বাবা তেরখাদার আড়কান্দী গ্রামের খাজা শেখ বাংলাদেশ আনসার ব্যাটালিয়নে কর্মরত। তিনি সাত বছর আগে একই উপজেলার আক্কাস শেখের মেয়ে তাসলিমাকে বিয়ে করেছিলেন। পরে দাম্প’ত্য কলহের একপর্যায়ে তাদের মধ্যে বিবাহ বি’চ্ছেদ ঘটে। আর দেড় বছর আগে মুক্তা বেগমকে বিয়ে করেন খাজা শেখ।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: