বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ১১:০৩ পূর্বাহ্ন

ঢাকা বিমানবন্দরে কাতারগামী প্রবাসীরা দফায় দফায় ভোগান্তির শিকার

প্রকাশিতঃ বুধবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২১, ৩:৩২ অপরাহ্ন

কাতারগামী প্রবাসী রেমিট্যান্স যো’দ্ধাদের ফ্লাইট মিস হওয়ার ২৪ ঘণ্টা পর দ্বিতীয় দিনের মতো গতকাল বিমানবন্দরে গেলে তাদেরকে বিমান কর্তৃপক্ষ শিডিউল ফ্লাইটে উঠতে না দিয়ে আবারো ফেরত পাঠিয়েছে বলে অভি’যোগ পাওয়া গেছে। হয়রা’নির শি’কার প্রবাসীরা বলছেন, এ দিন ক’রো’না পরী’ক্ষার মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা বলে তাদেরকে বিমানবন্দর থেকে ফেরত দেয়া হয়েছে। বিমানের টিকিটে পরিবর্তন করে নতুন ফ্লাইটের সময় দেয়া হয়েছে।

 

উপায় না দেখে তারা নিজ নিজ গ্রামে ফিরে গেছেন। এর আগে কাতারগামী যাত্রীরা বিমানবন্দর টার্মিনালে বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের কাউন্টার থেকে বোর্ডিং পাস না পাওয়ায় কর্তব্যরতদের বি’রু’দ্ধে ক্ষো’ভ প্রকাশ করেন। তারপরও মেলেনি কোনো সুরাহা। প্রসঙ্গত, গত সোমবার সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় কাতারগামী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের শিডিউল ফ্লাইটে ওঠার জন্য সাজিরুল, মোজাম্মেল, সামসুল ইসলামসহ ১২ জন প্রবাসী শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে যান।

 

বিমানের কাউন্টারে যাওয়ার পর তাদের জানানো হয়, কাতারগামী ফ্লাইটের কোনো শিডিউল নেই। পরে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষের নির্দেশে যাত্রীদের পরের (গতকাল) দিনের ফ্লাইটে পাঠানো হবে আশ্বাস দিয়ে উত্তরার ৭ নম্বর সেক্টরের ব্লু বার্ড আবাসিক হোটেলে পাঠানো হয়। সেখানে রাত যা’পন করে তারা গতকাল মঙ্গলবার বেলা আড়াইটার দিকে আবারো ফ্লাইট ধরার জন্য বিমানবন্দরের বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের কাউন্টারে দাঁড়ান।

 

সেখানে যাওয়ার পর তাদেরকে বলা হয়, কাতারের ফ্লাইট যাবে ঠিকই; কিন্তু সেই ফ্লাইটে তাদের যাওয়া হবে না। কারণ ক’রো’না পরী’ক্ষার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। এরপরই যাত্রীরা ক্ষো’ভ প্রকাশ করতে থাকেন। কথাকা’টাকা’টির একপর্যায়ে কাতারগামী এসব যাত্রীদের টিকিট পরিবর্তন করে নতুন ফ্লাইটের সময় দেয়া হয় ২৫ নভেম্বর সন্ধ্যা সোয়া ৬টায়। কাতারগামী যাত্রীদের একজন সাজিরুল আলম ন’য়া দিগ’ন্তকে দুই দিন ধরে বিমানবন্দরে গিয়ে দফায় দফায় হ’য়রা’নি ও ভো’গা’ন্তির হওয়ার অভি’যোগ করে বলেন, বিমানবন্দরে গিয়ে আমরা গতকালও হয়রা’নির শি’কার হয়েছি।

 

তারা বলছেন, আমাদের কো’ভি’ড টে’স্টের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। ১৩ তারিখ আমরা কো’ভি’ড টে’স্ট করিয়ে ১৫ তারিখের ফ্লাইট ধরতে বিমানবন্দরে যাই। সে দিন ফ্লাইট শিডিউল নেই বলে আমাদের জানানো হয়। যদিও এ ব্যাপারে আমাদের বিমান থেকে কোনো মেসেজ দেয়া হয়নি। তখন আমাদের বলা হয়, গতকালের ফ্লাইটে আমরা যেতে পারব। বিমানবন্দরে যাওয়ার পর কাউন্টার থেকে বলা হয়, কো’ভি’ড টেস্টের মেয়াদ নাই। এমন কথা শোনার পর আমরা বলেছি, এই দেশে আমাদের মতো লেবারদের কোনো দাম নাই! অথচ আমরাই হলাম প্রবাসের আসল রেমিট্যান্স যো’দ্ধা।

 

তিনি ন’য়া দিগ’ন্তকে ক্ষো’ভ প্রকাশ করে বলেন, আপনারা খোঁজ নেন, প্রবাস থেকে আমরা অ’বৈধভাবে কোনো টাকা দেশে পাঠাচ্ছি কি না। যা কামাই করছি সবই বৈ’ধভাবে ব্যাংকিং চ্যানেলে পাঠিয়েছি। এরপরও আমাদের এভাবে বিমানবন্দরে হয়রা’নির কোনো মানে আছে? তিনি বলেন, গত সোমবার বলেছিল, কো’ভি’ড টেস্টের কোনো সমস্যা হলে সেটি তারা দেখবেন। এখন বলছেন, এ ব্যাপারে নাকি তাদের কিছুই করার নেই।

 

তাহলে এখন কি করবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা যে ১২ জন যাত্রী ছিলাম তাদের মধ্যে এখন আছি পাঁচ জন। আমি চট্টগ্রাম ফিরে যাচ্ছি। অন্যরা কুমিল্লাসহ যার যার বাড়িতে যাচ্ছে। আগামী ২৪ নভেম্বর চট্টগ্রামে কো’ভি’ড টেস্ট করে এরপর ঢাকায় আসব ২৫ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টা ১৫ মিনিটের ফ্লাইট ধরতে। দেখি তখন আবার কি হয়। এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, কাতার যাওয়ার জন্য অনেক এয়ারলাইন্স আছে। এভাবে হ’য়রা’নি করলে ভবিষ্যতে আর বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের টিকিট কাট’ব না।


More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error:
error: